সরকারি ভাবে রোমানিয়া যাওয়ার উপায় ২০২৩

আমাদের শেষ একটি প্রবাসী নির্ভর একটি দেশ। আমাদের দেশে তুলনা মুলক ভাবে বেকারের সংখ্যা অনেক বেশি। সেই তুলনায় আমাদের দেশে কর্মংস্থানের খুবি অভাব। বর্তমানে দেশে বেকারের সংখ্যা সর্বোচ্চ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিগত দিন গুলো থেকে এখন বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি বেকারের সংখ্যা  বৃদ্ধি  পেয়েছে । বর্তমানে দেশে বেকারের সংখা মোট জনসংখার ৬.৯১ শতাংশ, যা পুর্বে ছিল ৬.৪৭ শতাংশ। যা সর্বকালের সর্বোচ্চ বেকার সংখ্যা। তাই বাংলাদেশের মানুষদের এক প্রকার বাধ্য হইয়েই প্রবাসে পাড়ি জমাতে হয়। Shorkari vabe romaniya zauyar upay 2023

আজ আমরা কথা বলবো রোমানিয়া নিয়ে। রোমানিয়া হচ্ছে দক্ষিণ পূর্ব ইউরোপের বৃহত্তম এবং ইউরোপের দ্বাদশ বৃহত্তম দেশ।  এই দেশের আয়তন ২৩৮২৯৭ বর্গ কিলোমিটার। আমাদের দেশ থেকে অনেক মানুষ বিভিন্ন ভাবে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পারি জমিয়ে থাকেন। তবে অবৈধ ভাবে যাওয়ার মধ্যে থাকে অনেক রকম ঝুকি। এতো পরিমাণ ঝুকি যে জীবন চলে যেতে পারে। তাই আমাদেরকে এই ভাবে যাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

আমরা কোন ভাবেই নিজেকে এবং আমাদের পরিবারকে বিপদের মুখে ফেলতে পারিনা। তাই আজকে আমরা জানবো সরকারি ভাবে কি ভাবে রোমানিয়া যাওয়া যায়। যাতে করে আমদের কোন রকম ঝুকি না থাকে। আমরা শুধু প্রসেস গুলো ফলো করলেই খুব সহজেই আমরা আমাদের স্বপ্নের দেশে পারি জমাতে পারবো। আমরা আমাদেরকে এবং আমাদের পরিবারকে নিরাপদ রাখতে পারি।আসুন তাহলে জেনে নেয়া যাকঃ

বৈধ পথে রোমানিয়া যাওয়ার নিয়মঃ

  • প্রথমে আমাদেরকে রোমানিয়ার সরকারি, বেসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত কোম্পানি গুলোর নিয়োগ প্রকাশ করা হবে।
  • তারপর আপনাদের সেই নিয়োগ গুলোতে আবেদন করতে হবে। এবং আপনার সেই কাজের উপর অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। তাহলে আপনাকে অগ্রাধিকার দেয়া হবে।
  • আবেদন করার পর আপনাকে বাংলাদেশের রোমানিয়ান এম্বাসি থেকে ডাক আসবে। 
  • সেখানে আপনাদের ইন্টারভিউ নেয়া হবে। 
  • আপনি যদি ইন্টারভিউতে ভালো করেন তাহলে আপনাকে সেই কোম্পানি থেকে পূনরায় আবার ইন্টারভিউ এর জন্যে ডাকা হবে।
  • ইন্টারভিউতে যদি টিকে যান তাহলে আপনার প্রযোজনীয় সকল কাগজ পত্র সেথানে জমা দিতে হবে।
  • কাগজ পত্র যদি ঠিক থাকে তাহলে আপনার ভিসার জন্যে আবেদন করা হবে। 
  • এখন যদি আপনি ভিসা পান তাহলে আপনি রোমানিয়া যাওয়ার জন্যা প্রস্তুতি নিতে পারেন।
  • এখন আপনার সব কাজ সম্পুর্ন হলে আপনি টিকিট কেটে পুরো প্রস্তুতি নিতে পারেন।

এভাবেই আপনাদের সরকারি ভাবে রোমানিয়া যাওয়ার পুরো ধাপ। কিন্তু এই নিয়োমের তারতম্য হতে পারে, কারন সব কাজ সরকারি ভাবে হলে কিছুটা এদিক সেদিক হতে পারে। তাই আপনাদেরকে খুবি সচেতন ভাবে সব কাজ সম্পুর্ন করতে হবে। তা না হলে নানা রকম আমলা তান্ত্রিক যটিলতা সৃষ্ট হতে পারে। 

রোমানিয়া ভিসার দাম কত 

বিদেশে যেতে যেমন কাজের অভিজ্ঞতা দরকার হয়ে থাকে তেমন দরকার হয়ে থাকে টাকা পয়সার। মোটা অংকের টাকা ছাড়া আজ কাল কোন ভাবেই বিদেশে যাওয়ার কথা চিন্তা করা যায় না। তাই প্রয়োজনীয় সব কাগজ পত্রের সাথে সাথে আমাদের প্রয়োজনীয় টাকার ব্যাবস্থা করতে হবে। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে চিন্তা করলে খরচটা বেড়ে দ্বিগুন হয়ে যায়। কারন এখানে প্রতারকের পরিমান খুবি বেশি। এখন আসুন যেনে নেয়া যাক রোমানিয়া যেতে সরকারি ভাবে ভিসার দাম কতো হতে পারে।

সরকারি ভাবে যে সকল ভিসা চালূ হয়েছে তার ভিন্নতা রয়েছে। কারন একেক ভিসার দাম একেক রকম হয়ে থাকে। তবে কাজের ভিসার দাম ৫ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে ৭ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। তা কোম্পানি ভেধে কম বেশি হতে পারে। 

স্টুডেন্ট ভিসার দাম কত 

কাজের ভিসার পাশাপাশি আমাদের দেশ থেকে অনেক ছাত্র তাদের পড়াশোনার জন্যে রোমানিয়াতে পাড়ি জমিয়ে থাকেন। সেখানে তারা উচ্চ শিক্ষার জন্যে গিয়ে থাকেন। সেখানে পড়াশোনার পাশা পাশি পার্টটাইম কাজ করার সুযোগ থাকে। বাংলাদেশ থেকে রোমানিয়ার কলেজে বা বিশ্ববিদ্যালয়র স্কলারশিপ নিয়ে আমাদের দেশের ছাত্ররা সেখানে গিয়ে থাকেন। তবে কাজের ভিসার থেকে ছাত্র ভিসার দাম তুলনা মূলক কম। বাংলাদেশ থেকে স্কলাশিপে রোমানিয়া যেতে আপনাদের খরচ হবে ৪ লক্ষ টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা। 

এই দুই রকম ভিসার পাশাপাশি সেখানে আরো অনেক রকম ভিসা হয়ে থাকে। তবে সেগুলোর দামের ভিন্নতা রয়েছে। বর্ত্মানে সেথানে বাংলাদেশি শ্রমিকের অনেক কদর রয়েছে। তাই আমাদের দেশ থেকে অনেক লোকই সেখানে কাজের উদ্দেশ্যে পারি জমিয়েছেন।

শেষ কথা 

প্রিয় পাঠক, আশা করি আমাদের এই পোষ্টি আপনাদের ভালো লেগেছে। আপনাদের সকল পরামর্শ আমাদের কমেন্ট করে জানাতে পারেন। আমরা চেষ্টা করবো আপনাদের প্রয়োজন মতো পোষ্ট দেয়ার। পরবর্তি পোষ্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন-

পাসপোর্ট চেক করার নিয়ম

সৌদি আরবের ভিসা চেক করার নিয়ম

কাতারের ভিসা চেক করার নিয়ম ২০২৩

কি ভাবে এয়ারটেলে এমবি দেখে

Leave a Comment