সংসারে সুখি হওয়ার উপায়-সুখি না হওয়ার কারন

আমাদের সংসারে সুখি হওয়ার অনেক সূত্র রয়েছে, আমরা সবাই চাই আমাদের সংসার জীবনে সুখি হতে,কিন্তু আমরা অনেকেই এই ব্যাপারে ভুল পদোক্ষেরের কারনে সংসারে সুখি হতে পারে না। সংসারে যদি সুখ না থাকে তাহলে জীবন অতিবাহিত করা অনেক কষ্টকর হয়ে থাকে। তাই আমরা সুখের জন্যে অনেক কিছু করে থাকি। অনেক বলে থাকে টাকাই নাকি সকল সুখের মূল। কিন্তু কথাটা আসলে সঠিক না। সংসারে সুখ বয়ে আনার জন্যে আমদের মন মানসিকতার অনেক পরিবর্তন আনতে হয়। আজকে আমরা সেই বিষয় নিয়েই কথা বলবো।shongshare shukhi huy jay ki vabe.

সংসারে অসান্তি হওয়ার কারন

সাংসারিক অসান্তি শুধু আমাদের দেশের সমস্যা নয়, এটা এখন পুরো পৃথির সমস্যা। এই সমস্যাটা দিন দিন বেড়েই চলছে। এই অসান্তির কারনে প্রতি বছর অনেক মানুষ তার জীবনের মায়া ত্যাগ করে ওপারে পারি জমায়। কিন্তু এই আত্মহননের পথ কোন সমাধানের পথ নয়। আমাদের এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসার চেষ্টা করতে হবে। আসুন তাহলে যেনে নেই কি কারনে সংসারে অসান্তি হতে পারেঃ

  • চাহিদাকে সীমিত রাখা, সংসারের অসান্তির প্রধান কারন অচ্ছে চাহিদা, চাহিদা বেশি থাকলে সেই সংসারে কখনই শান্তি থাকতে পারে না।
  • স্বামী- স্ত্রী দুজনের মধ্যে ভালো বুঝা পরা থাকতে হবে। দুজনের মধ্যে যদি বোঝা পরা ঠিক মতো না থাকলে সেই সংসারে সব সময় অসান্তি লেগেই থাকে।
  • ধৈর্য শীল হওয়া, সংসারে অসান্তির আর একটা বড় কারন হচ্ছে ধৈর্য না থাকা। একজন রাগ করলে যদি অপরজন চুপ না থাকে তাহলে সেই সংসারে কখনই শান্তি থাকে না।
  • শালীনতা বজায় রাখা, অনেক সংসারে আছে যে একজন অপর জনের সাথে কথা বলার সময় খুবি খারাপ ভাষা ব্যাবসার করে থাকে। এটা সংসারে অসান্তির অন্যতম একটি কারন। 
  • একজন অপর জনের সম্মানের দিক লক্ষ্য না রাখা, স্বামী স্ত্রী যখন রাগা রাগী করেন তখন দুজন দুজনার সম্মানের দিক মাথায় রেখে কথা বলতে হবে যাতে কারো সম্মান নষ্ট না হয়। 
  • সংসার করার সময় অনেক সময় অনেক রকম সিদ্ধান্ত নিতে হয়, কিন্তু দুজনে যদি মিলে সেই সিদ্ধান্ত না নেয়া হয় তাহলে সংসারে অসান্তি শুরু হয়ে যায়।
  • মন মানষিকতার পরিবর্তন হওয়া, সংসারে সুখ শান্তি বজায় রাখতে দুজনের মনকেই সুন্দর রাখতে হবে। তা না হলে অসান্তি লেগেই থাকবে।

সংসারে সুখি হওয়ার কিছু উপায়

আমরা সবাই আমাদের সংসার জীবনে সুখি হতে চাই। কিন্তু আমরা সবাই সেই সুখটা পেয়ে থাকি না। আমরা অনেকেই আমাদের সংসার নিয়ে খুবি অসুবিধায় থাকি। কিন্তু আমরা এই সব বিষয় কারো সাথে খুব একটা শেয়ার করতে পারি না। তাই আমরা মনের দিক থেকে অনেক ভেঙ্গে পরি। এবং একসময় এটা আমাদের এখ প্রকার মানসিক রোগে পরিনত হয়ে যায়। তাই আমাদের এই সব বিষয় নিয়ে খুবি সচেতন থাকেতে হবে। আমরা এখন সংসারে সুখি হওয়ার কিছু উপায় সম্পর্কে জানবোঃ

  • মানসিক প্রসান্তি অনুভব করা, আমাদের শান্তির প্রথান হাতিয়ার হচ্ছে মানসিক প্রসান্তি অর্জন করা। আমরা যদি মনের দিক থেকে পরিচ্ছন্ন না থাকি তাহলে আমরা কখনই শান্তিতে থাকতে পারবো না।
  • পরিবারে সাথে থাকা, আমাদের দেশে এক সময় আমরা একান্নবর্তি পরিবারে বসবাস করতাম। আমরা আমাদের বাবা ,মা, চাচা, চাচী,ফুফু সবাই মিলে একটি বাড়িতে থাকতাম, একজনের বিপদে অপরজন ছুটে আসতো। কিন্তু এখন সেই পরিবার গুলো ভেঙ্গে খুবি ছোট হয়ে গেছে/ এখন একটি পরিবার বলতে শুধু স্বামী ও স্ত্রী বুঝায়। তাই তারা আর কনো মানষ পায় না তাদের মনের ভাব প্রকাশ করার জন্যে। এটাও সংসারে অসান্তি হওয়ার বড় একটি কারন। আমাদের উচিত বাবা মায়ের সাথে থাকা।
  • পরিবারকে সময় দেয়া, আমরা এখনকার সময়ে অনেক বেশি ব্যাস্তো থাকি, আমরা  আমাদের পরিবারের জন্যে একদমি কোন সময় পাই না। কিন্তু আমাদের উচিত কাজের ফাকে হলেও সময় করে পরিবার নিয়ে সময় কাটানো।
  • মাঝে মাঝে বাহিরে ঘুরতে যাওয়া, যখন আমাদের মনের এক ঘেয়েমি মনে হয় তখন আমাদের উচিত পরিবার নিয়ে বাহিরে কোথাও ঘুরতে যাওয়া, এতে মন ফ্রেস হয়, মন ভালো থাকে। আর মন ভালো থাকলে পরিবারেও শান্তি থাকে।
  • একসাথে বসে খাবার খাওয়া, সংসারে শান্তির আর একটি কারন হচ্ছে এক সাথে বসে খাবার খাওয়া। আমরা আমাদের কাজের কারনে দিনে বাহিরে থাকি, তবে দিনে একবার হলেও পরিবারের সবাই একসাথে বসে খাবার খাওয়া উচিত। এতে করে সবার সাথে কুশল বিনিময় হয়, এবং সংসারে শান্তি বজায় থাকে।
  • পরিবারে সবাই মিলে গল্প করা , এখন স্মার্ট ফোনের যুগ,এখন আর মানুষ একসাথে বসে গল্প করে না। সবাই যার যার মতো করে নিজের ফোন নিয়ে ব্যাস্তো থাকে। তাই স্বামী স্ত্রী একসাথে থাকা কালীন সময়ে ফোনের ব্যাবহার কম করা। কারন এখন প্রায় সব অসান্তির প্রথান কারন হচ্ছে এই মোবাইল ফোন। তাই মোবাইল ফোন ব্যাবহারের ক্ষেত্রে আমাদের আরো সচেতন হতে হবে।
  • বিশ্বাস করা,স্বামী স্ত্রীর সম্পর্কের প্রথান ভিত্তি হচ্ছে বিশ্বাস করা । একজন অপর জনকে বিশ্বাস করতে হবে। অকারনে একে পরকে সন্দেহ করা যাবে না। সন্দেহ একটি সুখের সংসারকে তছনছ করে দেয়।

আমাদের সব কিছুর উপরে প্রাথান্য দিতে হবে আমাদের পরিবারকে। কারন পারিবারিক সুখের কারনেই আমরা এতো কিছু করে থাকি। আর সেই সংসারেই যদি হয় অসান্তি তাহলে আমরা আর দুনিয়ার কোথাও গিয়েই শান্তি পাবো না। তাই আমাদের সর্বচ্চো চেষ্টা করে সংসারে শান্তি রক্ষা করতে হবে।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আশা করি আমাদের পোষ্টি আপনাদের ভালো লাগবে। আমরা চেষ্টা করেছি সংসারে শান্তির কিছু কারন তুলে ধরার। আশা করি আপনারা উপকৃত হবেন। পরবর্তি পোষ্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন, ধন্যাবাদ।

আরো পড়ুন-

চিয়া সীড কি,খাওয়ার নিয়ম ও উপকারিতা

আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

মোটা হওয়ার সহজ উপায় কি

পাসপোর্ট চেক করার নিয়ম

সৌদি আরবের ভিসা চেক করার নিয়ম

কাতারের ভিসা চেক করার নিয়ম ২০২৩

কি ভাবে এয়ারটেলে এমবি দেখে

সরকারি ভাবে রোমানিয়া যাওয়ার উপায়

Leave a Comment