রাগ নিয়ন্ত্রণ করার উপায়- রাগ নিয়ন্ত্রণ করার ১০ টি সেরা উপায়

ভালোবাসা, আবেগ, সুখ, দুঃখ ও হাসি কান্নার মতো রাগো একটি অনুভূতি। তাই মানুষের ভিতরে এই এই অনুভূতিটা থাকা অতি জরুরী। রাগ থাকাটা দোষের কিছু না। দোষের কথা হচ্ছে রাগকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পারা। কারন রাগের কারনেই মানুষ তার জীবনের সবচেয়ে বড় ভুল করে থাকেন। তাই রাগের মাথায় কোন সিদ্ধান্ত নেয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। rag niyontron korar 10 t sohoj upay

আজকে আমরা কথা বলবো রাগ নিয়ে। রাগ নিয়ে মানুষ দুনিয়াতে অনেক বড় বড় ভুল করে থাকে। তাই রাগের খারাপ দিক থেকে আমাদের দূরে থাকতে হবে। আজকে আমরা কথা বলবো রাগকে নিয়ন্ত্রন করার উপায় নিয়ে। আসুন তাহলে দেখে নেয়া যাক।

রাগের কুফল

রাগ মানুষের অনেক বড় একটি আবেগ। কিন্তু রাগকে ব্যবহার করতে সঠিক জায়গায়। তা নাহলে সেই রাগের খেসারত দিতে হবে সারা জীবন ধরে। রাগের অনেক রকম কূফল রয়েছে। আজকে আমরা কথা বলবো রাগের কুফল নিয়ে। আসুন তাহলে দেখে নেয়া যাক রাগের কিছু কুফল।

১। রাগের কারনে শারীরিক সমস্যা

রাগের কারনে মানুষের নানা রকম শারীরিক সমস্যা দেখা দেয়। যাদের উচ্চ রক্ত চাপ রয়েছে তাঁরা রাগের কারনে অনেক বড় সমস্যার সম্মুখীন হতে পারেন। অতিরিক্ত রাগের কারনে এই ধরনের রোগিরা অনেক বড় রকমের ঝুকিতে পড়তে পারেন। এবং কি তাদের জীবনের উপরো হুমকি হতে পারে।

যাদের হার্টের সমস্যা রয়েছে তারাও অনেক বড় রকমের ঝুকিতে রয়েছেন কারনে। তাদের যদি এই রকম অধিক পরিমানে রাগ থাকে তাহলে সে হার্ট ফেইল করার মতো ঘটনা ঘটতে পারে।

২। মানসিক সমস্যা

শারীরিক সমস্যার পাশা পাশি এই রাগের কারনে অনেক বড় রকমের মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে। দীর্ঘ সময় ধরে এই রকম প্রচুর পরিমাণে রাগ  বজায় থাকলে মানুষের অনেক বড় রকমের মানসিক সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে। মেজাঝ খিট খিটে হয়ে যেতে পারে, সৃতি শক্তি কমে যেতে পারে। মাথা ব্যাথা করতে পারে। এছাড়া আরো অনেক রকম সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে।

৩। সামাজিক ক্ষতি

রাগের কারনে মানষের অনেক রকম সমস্যার পাশা পাশি সামাজিক ক্ষতি সাধন পর্যন্ত হতে পারে। অতিরিক্ত রাগ থাকলে তাকে মানুষ খুব একটা পছন্দ করেন না। সবাই তাকে এড়িয়ে চলতে পছন্দ করে। এতে করে সে সামাজিক ভাবে অপমানিত হতে থাকে। আস্তে আসতে সবাই তার কাছে থেকে দূরে সরে যেতে থাকে।

৪। আর্থিক ক্ষতি

অতিরিক্ত রাগের কারনে মানুষ আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়। কারন রাগের মাথায় যদি কোন ব্যবসায়ী তার ব্যবিসার পরিকল্পনা করেন বা সিদ্ধান্ত নেন তাহলে তার ব্যবসায় ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, আর এভাবে সে অনেক বড় রকমের ক্ষতির মুখোমুখি হতে পারে।

rag niyontron korar upay

রাগ নিয়ন্ত্রণ করার উপায়

আমরা জানতে পারলাম যে রাগের কারনে কি কি ক্ষতি হতে পারে, এখন আমরা জানবো যে রাগ কে কিভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হয়। যা আমাদের জীবনের জন্যে খুবি জরুরী। কারন এই সমস্যার কারনে অনেক সংসার নষ্ট হয়ে যায়। অনেক মানুষ তার স্বপ্ন থেকে দূরে ছিটকে পরে যায়। তাই আমাদের জীবনকে সুন্দর করতে রাগকে নিয়ন্ত্রণ করার কৌশল জানা খুবি জরুরী। আসুন তাহলে দেখে নেয়া যাক।

১। ভেবে চিনতে কথা বলুন

কথা বলার আগে ভেবে চিন্তে কথা বলুন, যে সকল কথা বললে মানুষের সাথে আপনার ঝামেলা সৃষ্টি হতে পারে সে সকল কথা বলা থেকে এড়িয়ে চলুন। সম্ভব হলে খুবি কম কথা বলুন। কারন কথা যত কম বলা যায় সমস্যা তত কম হয়ে থাকে।

২। নিজের মনের উপর কন্ট্রোল রাখার চেষ্টা করা

নিজের উপর অনেক বেশি কন্ট্রোল থাকতে হবে। হুট করে অধিক রেগে যাওয়া যাবে না। মনে রাখতে হবে যে রাগ মানুষকে সব সময় ক্ষতির দিকে ঠেলে দেয়।

৩। দাঁড়ানো অবস্থায় থাকলে বসে পড়া

আপনার রাগ যদি দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় হয় তাহলে খুব তাড়াতাড়ি বসে পরা, এই ভাবে নিজের অবস্থানের পরিবর্তনের ফলে রাগ খুব তাড়াতাড়ি রাগ কমে যায়।

৪। পানি পান করা

খুব বেশি রাগ হলে যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব কিছু পান করা, কারন আপনি যখুন কিছু পান করবেন তখন আপনার মন অন্য দিকে সরে যাবে। আর তখনই আপনার রাগ কমে যাবে।

৫। নিজের ভুল স্বীকার করে নেয়া

আপনি যদি অন্যের উপর বিনা কারনে রাগ ঝাহির করে থাকেন তাহলে খুব দ্রুত তার কাছে ক্ষমা চাওয়া। কারন নিজের ভুল স্বীকার করলে তখন আর কোন রকম রাগ থাকে না। এতে করে মনটা অনেক হালকা হয়ে যায়।

৬। কারো সাথে কথা বলা

খুব বেশি রাগে গেলে আপনি চেষ্টা করবেন আপনার মন অন্য দিকে সরিয়ে নিতে। আপনি অন্য কোন বিষয় নিয়ে অন্য কোন মানুষের সাথে কথা বলতে পারেন, তাহলে আপনার রাগ অনেক আংশেই কমে যাবে।

৭। মানুষকে ভালোবাসতে চেষ্টা করা

একে অন্যের সাথে খুব ভালো ব্যবহার করা। অন্যের সাথে খুব সুন্দর ব্যবহার করতে হবে, খুব বেশি বিনয়ী হতে চেষ্টা করতে হবে। কারন বিনয়ী মানুষের রাগ খুব কম যাহির হয়।

৮। নিজেকে ছোট ভাবা

নিজেকে সব সময় ছোট মনে করে চলা। এই ভাবে চলতে পারলে আপনার রাগ আর আগের মতো খুব বেশি জাহির হবে না। আপনি ভিতর থেকে অনেক বেশি সুন্দর মনের অধিকারি হতে পারবেন।

৯। ক্ষমা করতে শেখা

আপনার অধীনস্থ কোন মানুষ যদি কোন ভুল করে ফেলে তাহলে তাকে মাফ করে দিতে হবে। কারন মাফ করতে শিখলে আপনার মনের বোঝা অনেক আংশে কমে যাবে। তাই অন্যকে ক্ষমা করে দেয়া শিখতে হবে।

১০। খেলাধুলা করা

নিজের রাগ কমাতে আপনাকে খেলাঘুলার সাথে থাকতে হবে, কারন আপনি যদি সবসময় ঘরের মধ্যে বন্দি থাকেন তাহলে আপনার মেজাজ খারাপ হয়ে যায় , আর সবাইকে রাগ দেখিয়ে কথা বলেন। তাই নিজেকে ব্যস্ত রাখাটাই অনেক লাভের।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আশা করি আমাদের এই পোষ্টি আপনাদের ভালো লাগবে। আমরা আজজে যে বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছি তা খুবি জরুরী একটা বিষয়, আমাদের সবার জীবনকেই এই রকম ভয়ানক রাগ থেকে বাচার চেষ্টা থাকতে হবে। আমাদের পোষ্টি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে আমাদের পাশেই থাকুন, ধন্যবাদ। 

আরো পড়ুন-

নিজেকে পরিবর্তন করার উপায়- জীবনকে সুন্দর করবেন যে ভাবে

খারাপ থেকে ভালো হওয়ার উপায়- আলোকিত মানুষ হওয়ার উপায়

ইতালি ভিসা খরচ – চার লাখ লোক নেবে ইতালি

ক্ষুদ্র ব্যবসার তালিকা – ১০ টি লাভজনক ব্যবসার আইডিয়া

ছোট বোনের বিয়ে নিয়ে স্ট্যাটাস, ক্যাপশন ও কবিতা

বেইমান মানুষ নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, ক্যাপশন ও কবিতা

কৃষি নিয়ে স্ট্যাটাস, ক্যপশন, উক্তি ও কবিতা

ছেলের প্রতি বাবার ভালোবাসার উক্তি, স্ট্যাটাস ও বাবার উপদেশ

মজার ফেসবুক স্ট্যাটাস, ক্যাপশন ও মজার ছন্দ

Leave a Comment