মোটা হওয়ার সহজ উপায় কি

আমরা আজকে যে বিষয় নিয়ে আলচনা করবো তা হলো মোটা হয়ার সহজ উপায় নিয়ে। অনেকে আমাদের স্বাস্থ্য নিয়ে অনেক রকম চিন্তার মধ্যে থাকি।আমদের অনেকের শরীর প্র্যয়োজনের তুলনায় অনেক পাতলা বা কম ওজন।তাই আমাদের উচিত প্র্যোজন মতো ওজন বড়ানো।যাতে আমরা ফিট থাকতে পারি।আমাদের সু-স্বাস্থের জন্যে সঠিক ওজন খুবি দরকারি।Mota houyar shohoj upay ki

আমাদের অনেকের আবার স্বাভাবিকের তুলনায় ওজন অনেক বেশি সেটাও কিন্তু একধরনের সমস্যা।তাই আমাদের সঠিক ওজন বাড়াতে হবে।আগে আমাদের জানতে হবে যে আমাদের ওজন কেনো বাড়ানো প্রযোজন।তাহলেই আমরা আমাদের সঠিক সমাধান খুঁজে পাবো।আসুন তাহলে এ ব্যাপারে জেনে নেয়া যাক সঠিক কিছু তথ্য। 

শরীরের ওজন না বড়ার কারন 

আমাদের শরীরে অনেক সময় অনেক রকম সমস্যা হয়ে থাকে,যেমন শরীরে সঠিক ভাবে খাদ্য উপাদান না পৌছালে ,বা সুষম খাবারের অভাবে।এসব নানান রকমের কারনে আমাদের শরীরে ওজন বাড়ার স্বাভাবিক প্রক্রিয়া বিগ্ন ঘটে থাকে।তাই আমাদের আগে ওজন না বাড়ার কারন গুলো সনাক্তন করতে হবে।তাহলেই আর কনো সমস্যা হবে না। আসুন তাহলে জেনে নেই ওজন না বাড়ারার কিছু কারনঃ

  • শারীরিক বা মানসিক কিছু সমস্যার কারনে ওজন বাড়ে না যেমন দুশ্চিন্তা, অস্থিরতা, ইত্যাদি মানসক সমস্যার কারনে ওজন বাড়ে না।
  • শারীরিক কিছু সমস্যা যেমনঃথাইরয়েট,ডায়াবেটিস,ইত্যাদি সমস্যার কারনে স্বাভাবিক ওজন বাড়তে বাধাগ্রস্থ হয়ে থাকে।
  • সঠিক সময়ে সঠিক খাবারটি গ্রহন না করা।
  • অস্বাস্থকর খাবার গ্রহন করা 
  • পর্যাপ্ত পরিমানে না ঘুমানো

ইত্যাদি আরো অনেক কারনে আমাদের শরীরের ওজন বাড়ে না।তাই আমাদের এই বিষয় গুলো খুব ভালো করে খেয়াল করতে হবে।তাহলেই আমরা আমাদের সঠিক ওজন বাড়ানে পারবো।আর সবচেয়ে দরকারি যে কথা তাহলো আমাদের লাইফ স্টাইলটাকে অবশ্যই নিয়ম মাফিক চালতে হবে।

ওজন বাড়ানো কেনো প্রয়োজন

আমরা সবাই চাই আমাদের শরীর যাতে ফিট থাকে।তাই আমাদের শরিরকে ফিট রাখতে হলে অবশ্যই আমাদের শরীরে শঠিক ওজন থাকতে হবে। রোগা বা হালকা স্বাস্থ্য কখনোই কাম্য হতে পারে না। বা রোগা পাতলা শরীর কখনোই ফিট হতে পারে না।আসুন তাহলে যেনে নেয়া যাক কেনো আমাদের ওজন বাড়াতে হবে।

স্বাভাবিকের তুলনায় কম ওজন থাকলে কিছু সমস্যা দেখা যায় যেমনঃ

  • শরীর রোগা হয়ে যায়।চোয়াল ভেঙ্গে যায়,চোখ গর্তে ডুকে যায়।
  • দেখতে অনেকটা বয়স্ক বয়স্ক লাগে।
  • সবসময় শরীর ক্লান্ত লাগে।
  • মাথা ঝিম ঝিম করে।
  • রক্তে প্রশার কমে যায়,যাকে আমরা লো-প্রেশার বলে থাকি।
  • মেয়েদের কিছু মেয়েলি সমস্যা দেখা যায়।

এরকম আরো অনেক রকমের সমস্যা দেখা দিতে পারে,তাই আমাদের স্বস্থ্য থাকতে হলে অবশ্যই সঠিক ওজনের বিষয়টি খেয়াল রাখতে হবে। এবার আসুন আমরা জেনে নেই কিভাবে শরীরের ওজন বাড়ানো যায় তা যেনে নেই।

শরীরের ওজন বাড়ানোর উপায়

শরীরের ওজন বাড়ানোর উপায় বা মোটা হওয়ার উপায় আমরা অনেকে যানতে চাই,কিন্তু সঠিক কনো তথ্য হয়তো পাই না।আজকে আমরা সঠিক উপায়ে কিভাবে শরীরের ওজন বাড়ানো যায় তা নিয়ে আলোচনা করবো।

ওজন বাড়াতে আমাদের যে বিষয়ের উপর বিশেষ নজর দিতে হবে তাহলো আমাদের খাবার।আমাদের তিন বেলা খাবারে কিছু পরিবর্তন আনতে হবে।আমরা দিনে কি খাবো বা কিভাবে খাবো তা এখন জানবো

সকালের খাবার

সকালে আমরা ঘুম থেকে উঠে খাবো সকালের খাবার,সকালে আমরা খাবো দুধ,ডিম, কলা। এই খাবার গুলোতে রয়েছে প্রচুর পরিমানে পুষ্টিগুন।যার মধ্যে প্রায় সকল রকম ভিটামিন ও মিনারেল রয়েছে। দুধ খেলে শরীরে রিক্ত ভালো থাকে এবং নতুন রক্ত তৈরিতে সাহায্য করে। কলা হজম শক্তি বৃদ্ধি করে। ডিমে রয়েছে প্রচুর পরিমানে ক্যালরি এবং ভালো চর্বি, যা আমাদেরকে শক্তি শালি করে তুলে।

দুপুরের খাবার

সকালের পরে আমাদের খেতে হবে দুপুরের খাবার,আমরা দুপুরের খাবারকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব্য দিয়ে থাকি।আমরা দুপুরের খাবারে রাখবো ভাত,মাছ,মাংস ও শাক-সবজ্বি এবং ডাল। ভাতে রয়েছে শরকরা জাতীয় খাবার,এতে ওজন বাড়াতে খুব ভালো ভুমিকা পালন করে থাকে,মাছ ও মাংস থেকে আমরা পাবো প্রনিজ আমিষ,যা আমাদের শরীরের শক্তি ও ওজন দুটোই বাড়িয়ে তুলবে। শাক-সবজিতে রয়েছে ফাইবার ও শরকরা যা আমাদের সব রকম পুষ্টি পুরন করবে, এবং খাবারের রুচি ঠিক রাখবে। সাথে আমরা রাখতে পারি টক দই,টক দই আমাদের পেটে ভালো জীবানূ গুলোকে সতেজ রাখবে,আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো থাকবে।

রাতের খাবার

রাতের খাবারে আমরা দুপুরে যা খাবো তাই রাখতে পারি,আবার দুপুরে আমরা সবাই কাজের কারনে বাহরে থাকি।তাই কিছু খাবার বাদ পরতে পারে,তাই আমরা বাদ পড়া খাবার গুলো আমরা রাতে যোগ করে নিতে পারি। এতে করে আমাদের খাবারের মেনুটা সঠিক থাকবে।এবং আমাদের ওজন খুব ভালো ভাবে এবং খুব দ্রুতো বাড়বে।

নাস্তা

সকাল দুপুর রাতের খাবারের মাঝে মাঝে আমরা কিছু নাস্তা জাতীয় খাবার রাখতে পারি,বা হালকা কিছু খাবার খেতে পারি,যেমন আমরা নাস্তায় কিছু বাদাম খেতে পারি, বা বিভিন্ন রকম বীজ জাতীয় খাবার রাখতে পারি।এতে করে আমাদের শরীরে কনো প্রোকার খারাপ চর্বি জমতে পারবে না।আমাদের মাসাল বাড়াতে সাহায্য করবে।

ব্যায়াম

আমাদের অনেকের ধারনা যে ব্যায়াম শুধু ওজন কমাতে সাহায্য করে,তাই ওজন বাড়াতে ব্যায়ামের কনো ভুমিকা নেই।আসলে কথাটি সঠিক নয়। শরীরের মাসল বৃদ্ধির ক্ষেত্রে ব্যায়াম খুবি গুরুত্ব পুর্ন ভুমিকা পালন করে।তাই আমরা অবশ্যই কিছু ব্যায়াম করবো।

সর্তকতা

আমরা আমাদের শরীরের ব্যাপারে খুবি যত্নবান হবো,তাই আমাদের উচিত এসকল ব্যাপারে একজন ভাল অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে নেয়া।তিনি আমাদের শারীরিক অবস্থা বিবেচনা করে দেখবেন যে,কেনো আমাদের ওজন স্বভাবিক ভাবে বাড়ছে না।তারপরেই আমরা প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করবো।আমরা ওজন বাড়ার জন্যে ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কনো রকম ঔষধ গ্রহন করবো না।এতে করে হিতে বিপরীত হতে পারে।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক,আশা করি আমাদের এই পোষ্টি আপনাদের ভালো লেগেছে।এরকম আরো পোষ্ট পেতে আমাদের পেজটি ফলো করতে পারেন,ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন-

আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

 

Leave a Comment