কি দেখে বিয়ে করা উচিত

বিয়ে একটি সামাজিক এবং ধর্মীয় রীতির নাম। যা আমাদের জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিয়ের মাধ্যমে একজন ছেলে একজন মেয়ে বৈবাহিক সম্পর্কে আবদ্ধ হয়ে থাকেন যা কিনা খুবই পবিত্র এক বন্ধন ,এই বন্ধনের মাধ্যমেই একজন অপর জনের সাথে সারা জীবন থাকার জন্যে অঙ্গিকার বদ্ধ হয়ে থাকেন।  সব ধর্মের জন্যেই বিয়ে অতি গুরুত্বপুর্ন একটি বিষয়। যা কিনা ইবাদত ও বটে। তাই এই বিষয়টা আমাদের খুবি গুরুত্ব দিয়ে দেখতে হবে।ki dekhe biye kora uchit

বিয়ের মাধ্যমে একজন স্ত্রী তার সব কিছু ছেড়ে , তার সকল সম্পর্ক থেকে বাধন মুক্ত হয়ে চলে আসে তার স্বামীর বাড়ি। আর দুজন দুজনার সাথে কাটাতে হয় সারাটি জীবন। তাই বিয়ের জন্যে পাত্র পাত্রি বাছাইয়ের ব্যাপারে আমাদের অনেক সচেতন থাকতে হবে। কারন , কারন বিয়ে কনো ছেলে খেলা নয়। এটা একজন মানুষের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্ব পুর্ন একটি সিদ্ধান্ত। তাই এখানে কনো প্রকার ভহুল করা যাবে না। একটি ভুলের মাশুল দিতে হতে পারে সারাটি জীবন।

বিয়ে করার প্রয়োজনীয়তা

বিয়ে করার প্রয়োজনীয়তা আমরা বলে শেষ করতে পারবো না। একজন মানুষের জীবনে বিয়ের প্রয়োজনীয়তা অপরিসীম। বিয়ের মাধ্যমে একজন নারী একজন পুরুষ সামাজিক ভাবে একসাথে থাকার অনুমতি পেয়ে থাকেন। বিয়ের মাধ্যমে আমাদের বংশবৃদ্ধি হয়ে থাকে এবং পরবর্তী প্রজন্ম টিকে থাকে। যৌবন কালে দরকার হয় একজন সঙ্গীর, আর মধ্য বয়সে দরকার হয় একজন সহকারি। আর বৃদ্ধ বয়সে দরকার হয় একজন সহযাত্রী যে কিনা বিপদে আপদে একজন অপরজনের পাশে থাকেবেন। একজন সুস্থ মানুষ কখনই বিয়ে না করে একা একা জীবন কাটাতে পারে না। তার কথা বলার জন্যে হলেও একজন সঙ্গী দরকার।

বিয়ের মাধ্যমে যে সম্পর্কের সৃষ্টি হয় তা টিকে থাকে বিশ্বাসের মাধ্যমে।  তাই বিবাহিত জীবনের প্রধান শর্ত হচ্ছে বিশ্বাস অর্জন করা। একজন অপর জনকে বিশ্বাস না করলে সেই সম্পর্ক কখনই টিকে থাকতে পারে না। তারপরে হচ্ছে ভালবাসা। বিয়ের পরে আল্লাহতালা সেই দম্পতির মধ্যে এক সর্গিয় ভালবাসা সৃষ্টি করে দেন। যা কনো অবৈধ সম্পর্কের মধ্যে তৈরি হয়না। তাই একজন মানুষের জীবনে বিয়ের গুরুত্ব সর্বাধিক।

বিয়ে করার সময় যা দেখে মেয়ে নির্বাচন করতে হবে

বিয়ের প্রথম ধাপ হচ্ছে মেয়ে নির্বাচন করা। একটি সুখি পরিবারের জন্যে একজন ভাল বউ খুবি প্রয়োজন। কারন মেয়ে যদি ভালো না হয় তাহলে বিয়ের পর তাদের সম্পর্ক কখনই ভালো হবে না। তাদের মধ্যে সব সময় ঝগড়া বিবাধ লেগেই থাকে। আর সংসারে সুখ তো দূরে থাক ভাল ভাবে টিকে থাকাটাই কঠিন হয়ে পরে। আসুন তাহলে জেনে নেয়া যাক মেয়ে নির্বাচনের বিষয় গুলোঃ

  • বিয়ের ক্ষেত্রে প্রথমে দেখতে হবে সম্পদ, কারন সবাই চায় মেয়ের বা মেয়ের পরিবার যেন স্বচ্ছল হয়। কারন সম্পদের ক্ষেত্রে দুই পক্ষ সমান হওয়াটা খুবি দরকার। কারন দুই পরিবার যদি খুব বেশি অসমকক্ষ থাকে তাহলে ওই সংসার টিকে না।
  • বংশ পরিচয়, দ্বিতীয়ত আমাদের দেখতে হবে মেয়ের বংশপরিচয়। কারন এটা খুবি দরকারি, ভালো বংশের মেয়ে স্বাভাবিক ভাবেই ভালো হবে। সবাই এমন টাই আশা করে। এ ক্ষেত্রেও দু পক্ষ সমান হলে ভালো হয়।
  • রুপ-সন্দৌর্য, রুপ-সন্দৌর্যের প্রাথান্য অনেক বেশি বিয়ের ক্ষেত্রে, কারন সব ছেলেই চায় যে তার বউ খুব সুন্দরি হবে। সব ছেলেদেরি এই আশা তাদের মনের ভিতর পুষতে থাকে।
  • দ্বীনদারিতা, সবচেয়ে যে বিষয়টা প্রাধান্য দিতে হবে তাহলো দ্বীনদারিতা। কারন স্বামী-স্ত্রি দ্বিনদার হলে সেই সংসারে সুখ সবচেয়ে বেশি থাকে। অন্য বিষয় গুলো যদি কমপরিমানে থাকে আর দ্বীন দারিতা যদি বেশি থাকে তাহলে সেই মেয়েকেই বিয়েতে প্রাধান্য দিতে হবে।

মেয়ে নির্বাচনে নবী (সাঃ) এর হাদিসঃতিনি বলেন, ‘নারীদের চারটি গুণ দেখে বিয়ে করো : তার সম্পদ, তার বংশমর্যাদা, তার রূপ-সৌন্দর্য ও তার দ্বীনদারী। তবে তুমি দ্বীনদারীকে প্রাধান্য দেবে। নতুবা তুমি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’ (সহিহ বুখারি, হাদিস : ৫০৯০)

শেষ কথা

সর্বপরি আমরা বুঝতে পারলাম যে বিয়ে মানুষের জীবনের একটি বড় সিদ্ধান্ত,তাই অবশ্যই আমাদের এই সিদ্ধান্তটি ভেবেচিন্তে নেয়া উচিত তাহলেই আমরা আমাদের বিবাহিত জীবনে সুখী হতে পারব। আর আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের জন্যে অবশ্যই একজন ভাল মায়ের দরকার। একজন ভালো মা থাকলে সন্তান এনিতেই ভালো হবে ইনশাআল্লাহ্‌।

আরো পড়ুন-

আলু দিয়ে ফর্সা হওয়ার উপায়

পল্টিবাজ নিয়ে উক্তি,স্ট্যাটাস ও কবিতা

পিছু টান নিয়ে উক্তি,স্ট্যাটাস ও কবিতা

রোদেলা দুপুর নিয়ে ক্যাপশন,স্ট্যাটাস ও কবিতা

মেয়েদের রাগ নিয়ে উক্তি,স্ট্যাটাস ও কবিতা

হাঁটা নিয়ে স্ট্যাটাস,উক্তি ও কবিতা

অলসতা নিয়ে স্ট্যাটাস,উক্তি ও কবিতা

Leave a Comment