বিদেশ থেকে ব্যাংকে টাকা পাঠানোর নিয়ম-বিদেশ থেকে সহজে টাকা পাঠানোর নিয়ম

বাংলাদেশের অনেক মানুষ বিদেশে থাকেন, তাঁরা তাদের জীবিকার তাগিদে বিদেশে পারি জমিয়ে থাকেন। তাদেরকে বলা হয়ে থেকে প্রবাসী। বাংলাদেশের প্রায় ৪.৫৫ শতাংশ মানুষ প্রবাসে থাকেন। সংখ্যায় প্রায় ৭৫ লাখের বেশি মানুষ প্রবাসে থাকেন। তাঁরা প্রবাসে হার ভাঙ্গা পরিশ্রম করে দেশের অর্থনিতির চাকা সচল রাখেন। দেশে প্রতি বছর অনেক বৈদেশিক মুদ্ররা তাঁরা  পাঠিয়ে থাকেন। bidesh theke bank e taka pathanor niyom

তাঁরা তাদের পাঠানো টাকা দেশে পাঠায় বলেই আজ দেশের অবস্থা অনেক ভাল ভাবে চলে। আমরা আজকে আলোচনা করবো কিভাবে সহজ উপায়ে বিদেশ থেকে সহজ উপায়ে দেশে টাকা পাঠানো যায়। কারন অনেক প্রবাসী তাদের কষ্টার্জিত টাকা সঠিক ভাবে পাঠানোর নিয়ম না জানার কারনে প্রতারনার সম্মুখীন হয়ে থাকে। প্রবাসী ভাই ও বোনদের কথা চিন্তা করেই আজকে আমরা জানবো সহজ কিছু উপায়। আসুন তাহলে জেনে নেই।

কি কি উপায়ে দেশে টাকা পাঠানো যায়

বিদেশ থেকে কয়েকটি উপায়ে টাকা পাঠানো যায়, সেগুলো এখন আমরা জানবো। আমরা যদি সঠিক উপায় গুলো না জানি তাহলে আমরা পড়তে পারি অনেক বড় ক্ষতির মুখে। এবং আমাদের পরিবার পরিজন হতে পারে ক্ষতিগ্রস্থ। আমাদের প্রবাসিরা অনেকেই বিদেশে গিয়ে থাকেন ব্যাংক লোন এর মাধ্যমে। তাঁরা যদি সঠিক সময়ে টাকা পাঠাতে না পারেন তাহলে তাদের হতে হয় অনেক রকম ঝামেলায় এবং গুনতে হতে পারে মোটা অংকের সুদ। আসুন তাহলে জেনে নেয়া যাকঃ

বিদেশ থেকে দেশে টাকা মূলত কয়েকটি উপায়ে পাঠানো যায় যেমনঃ

  1. ব্যাংকের মাধ্যমে।
  2. মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে।

এছাড়াও কিছু উপায় রয়েছে যা খুবি বিপদ জনক, এবার আসুন উপায় গুলো সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক।

ব্যাংকের মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠানোর উপায়

বিদেশে টাকা পাঠানোর সবচেয়ে সুন্দর ও সহজ এবং নিরাপদ উপায় হচ্ছে ব্যাংকের মাধ্যেমে টাকা পাঠানো। ব্যাংকের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে আপনাকে কোন রকম ঝামেলার মধ্যে পড়তে হবে না। এবং কি আপনাকে কোন রকম দুশ্চিন্ত করতে হবে না। আপনি বিশ্বের যে দেশেই থাকুন না কেন আপুনি সঠিক সময়ের মাঝে আপনার টাকা দেশে পাঠাতে পারবেন। ব্যাংকে টাকা পাঠাতে আপনাকে যা করতে হবে তাহলঃ

আপনি প্রথমে আপনার নিকটস্থ বাংলাদেশের যেকোন একটি শাখায় যাবেন ।

সেখানে গিয়ে আপনি আপনি আপনার ফোন নাম্বার এবং আপনি যে দেশে আছে সে দেশের আইডী কার্ড ব্যাংকে দিবেন এবং দিবেন আপনি যে একাউন্টে টাকা পাঠাতে চান সেই একাউন্ট নাম্বার। 

এবার ব্যাংক থেকে আপনাকে একটি ফর্ম পূরন করতে বলা হবে। আপনি আপনার ফর্মটি পুরন করে জমা দিন এবং আপনার টাকা দিন। তাহলেই আপনার টাকা চলে যাবে আপনার কাঙ্খিত একাউন্টে। কিন্তু আপনার যদি বাংলাদেশে কোন প্রকার একাউন্ট না থাকে তাহলে আপনি আপনার টাকা রেডি ক্যাশ এর মাধ্যমে পাঠাতে পারেন।

সেই ক্ষেত্রে আপনি যাকে পাঠাবেন তার আইডি কার্ডের ফটোকপি দিন এবং আপনি কোন ব্যাংকে এবং কোন শাখায় টাকা পাঠাতে যান তা উল্লেখ করুন , তাহলে ব্যাংক থেকে আপনাকে একটি গোপন নাম্বার দেয়া হবে, আপনি সেই নাম্বারটি আপনার দেশের লোকের কাছে দিন। আর উনি বাংলাদেশের সেই শাখায় গিয়ে উক্ত নাম্বারটি দেখালেই তাঁরা টাকা দিয়ে দিবে।

এবার আসুন ব্যাংক চার্জ এর বিষয়টা জেনে নেয়া যাক। ব্যাংক চার্জ নির্ভর করে ব্যাংকের উপর, একেক ব্যাংকের চার্জ একেক রকম হয়ে থাকে। সেই ক্ষেত্রে আপনাকে ব্যাংকের নির্ধারিত ফী প্রদান করতে হবে। তাহলেই আপনি আপনার সুবিধা গুলো পাবেন।

মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠানোর নিয়ম

সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকার বিদেশ থেকে মোবাইল ব্যাংকিং এর ব্যাবস্থা আরো সহজ করে দিয়েছেন। এখন বিশ্বের অনেক দেশ থেকেই খুব সহজে এবং খুব কম সময়ে দেশে টাকা পাঠানো যাবে। আপনি বিকাশের মাধ্যমে দেশে টাকা পাঠাতে হলে আপনাকে কিছু বিষয় অনুসরণ করতে হবে তাহলোঃ

প্রথমে আপনি আপনার নিকটস্থ যে কোন মানি ট্র্যান্সফারের অফিসে বা বাংলাদেশের কোন ব্যাংকের শাখায় আপনাকে যেতে হবে। যে ব্যাংক গুলোর সাথে দেশের মোবাইল ব্যাংকিং এর অনুমোদন রয়েছে সেই সব শাখায়। এখন তারপর আপনি দেশে যে বিকাশ নাম্বারের মাধ্যমে টাকা পাঠাতে চান সেই নাম্বারটি প্রদান করুন । তাহলেই আপনার টাকা চলে যাবে আপনার প্রিয়জনের মোবাইলে।

এভাবেই খুব অল্প সময়ের মাধ্যমে আপনি আদেশে টাকা পাঠাতে পারবেন। কিন্তু খরচ হবে একটু বেশি। কারন দেশে বিকাশে টাকা পাঠানোর পর তা ক্যাশ আউট করতে হাজারে ১৫ থেকে ২০ টাকা আপনাকে খরচ করতে হবে। যা ব্যাংকের তুলনায় খুবি বেশি। 

যে উপায়ে দেশে টাকা পাঠানো উচিত নয়

বাংলাদেশি প্রবাসী ভায়েরা অনেক সময় তাদের কষ্টের টাকা হুন্ডির মাধ্যমে পাঠিয়ে থাকেন, যা খুবি বিপদজনক। আপনার কষ্টের টাকা সেই ব্যাবসায়ি যে কোন সময় মেরে দিতে পারে। কারন আপনি যে তার মাধ্যমে টাকা পাঠিয়েছেন তার কোন প্রকার ডকুমেন্টস আপনার কাছে থাকে না। তাই আপনি আর চাইলেও আইনে কোন সহায়তা পাবেন না। তাই আপনাকে হুন্ডিতে টাকা পাঠানোর আগের অবশ্যই ভাল করে ভেবে দেখতে হবে।

শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আশা করি আমাদের এই পোষ্টি আপনাদের ভাল লেগেছে। আমাদের পোষ্টি যদি আপনাদের কোন প্রকার উপকারে লাগে তাহলেই আমাদের কষ্ট সার্থক হবে। এরকম আরো পোষ্ট পেতে আমাদের সাথেই থাকুন,ধন্যাবাদ। 

আরো পড়ুন-

টেলিটক ব্যালেন্স চেক – নাম্বার দেখার নিয়ম

বিমানে কি কি নেয়া যাবে না-বিমানের লাগেজ বিধিমালা

ভাগ্য নিয়ে স্ট্যাটাস, উক্তি ও হাদিস

ইমোশনাল স্ট্যাটাস, আবেগ ভরা উক্তি ও ছন্দ

কাজ নিয়ে স্ট্যাটাস, উক্তি ও কবিতা

গ্রাম নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস ও কবিতা

হাতপাখা নিয়ে স্ট্যাটাস,ক্যাপশন ও কবিতা

গরমে ত্বকের যত্ন কিভাবে নেব

Leave a Comment